মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৮ অক্টোবর ২০২১

বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃক ‘শেখ রাসেল দিবস’ উদযাপন


প্রকাশন তারিখ : 2021-10-18

প্রেস রিলিজ

তারিখ: ১৮ অক্টোবর, ২০২১

বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃক ‘শেখ রাসেল দিবস’ উদযাপন

 

‘শেখ রাসেল: দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ এই প্রতিপাদ্যকে ঘিরে ১৮ অক্টোবর, ২০২১ তারিখ, রোজ সোমবার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর প্রধান কার্যালয় বলাকা ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মদিনে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হয় ‘শেখ রাসেল দিবস’।

 

দিবসটি উপলক্ষে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর প্রধান কার্যালয় বলাকার লবিতে শিশুদের নিয়ে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। বিমানের বলাকাস্থ কনফারেন্স রুমে শেখ রাসেলের শৈশব জীবন নিয়ে আলোচনা হয় এবং চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ও অংশগ্রহণকারী শিশুদেরকে পুরস্কৃত করা হয়। কর্মসূচির দ্বিতীয়ার্ধে বাদ জোহর বিমানের সকল মসজিদে শেখ রাসেলকে উপলক্ষ্য করে ১৫ আগস্টের ঘটনায় শাহাদাতবরণকারী সকল শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনার্থে দোয়া ও মিলাদের আয়োজন করা হয়।

 

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ড. আবু সালেহ্ মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান জনাব সাজ্জাদুল হাসান এবং সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন মহাব্যবস্থাপক প্রশাসন মোঃ মোকতার হোসেন। বিমানের পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন ইউনিয়ন ও সংগঠনের নেতৃত্ববৃন্দ এবং গণমাধ্যমকর্মীসহ বিমানের বিভিন্নস্তরের কর্মীগণ আলোচনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।    

বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান জনাব সাজ্জাদুল হাসান শেখ রাসেল ও ১৫ আগস্টের ঘটনা নিয়ে স্মৃতিচারণামূলক বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি বলেন, “১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যখন রেডিওতে মেজর ডালিমের কন্ঠে বঙ্গবন্ধুর নিহত হওয়ার ঘোষণা উচ্চারিত হলো তখন আমরা হতভম্ব হয়ে গিয়েছিলাম। আমি তখন দশম শ্রেণির ছাত্র ছিলাম। এসময় আমার পিতার উদ্যোগে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ শহরের ঐতিহাসিক লোহিয়ার মাঠে বঙ্গবন্ধুর গায়েবানা জানাজার আয়োজন করা হয়। শুধু এ কারণে সেনাবাহিনীর লোকেরা এসে আমার পিতাকে ধরে নিয়ে যায়।”   

তিনি শেখ রাসেলের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। জনাব সাজ্জাদুল হাসান বলেন, “নতুন প্রজন্মের নিকট মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িকতা ছড়িয়ে দিতে হবে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সম্মান দেখাতে হবে। শুধু আলোচনার মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে হবে। সম্পৃতির দেশ বাংলাদেশ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও মানবিক নেতৃত্বে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাবে। দেশ হবে স্বপ্নের সোনার বাংলা।”

 

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ড. আবু সালেহ্ মোস্তফা কামাল বলেন, “আজ শেখ রাসেলের জন্মদিন। তবে এই আনন্দের দিনেও উপস্থিত সকলের মনে করুণ সুর বেজেই চলেছে, ব্যাথার অনুরণন জাগিয়ে যাচ্ছে। আমরা বাঙালির কালজয়ী মহান দূরদর্শী নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকে হারিয়েছি। হারিয়েছি মহীয়সী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিবকে যিনি সর্বদা সংকটকালীন সময়ে  বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে দূরদর্শিতার সঙ্গে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করেছেন। তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনের যে রোডম্যাপ আমাদেরকে দেখিয়েছেন তা বাস্তবায়নে আমরা সর্বদা কাজ করে চলেছি। আমাদের অদম্য আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। যে যেই অবস্থানে ও প্রাঙ্গনে আছি, সেখান থেকেই আত্মপ্রত্যয়ের সাথে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করতে হবে।” তিনি শেখ রাসেলসহ ১৫ আগস্টের ঘটনায় নিহত সকল শহীদগণের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।    

 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেল ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুসহ শিশু শেখ রাসেলও শাহাদাতবরণ করেন। 

 


Share with :

Facebook Facebook